ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে বহুতল ভবনে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় শিশু জুবায়ের, তার বাবা মকবুল, বড় ছেলে জয় ও স্ত্রী রেখার গর্ভে থাকা সন্তানের পর এবার মৃত্যুর কাছে হার মানল অগ্নিদগ্ধ রেখাও। অগ্নিদগ্ধ রেখা পাঁচ দিন মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে ঢাকার শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার রাত ১১টার দিকে মারা যান। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় মৃতের সংখ্যা গিয়ে দাঁড়াল পাঁচে। অর্থাৎ অগ্নিদগ্ধ হয়ে পুরো পরিবারটিই মারা গেছে। মঙ্গলবার (০১ মার্চ) সকালে রেখার চাচাশ্বশুর শরীফ হোসেন মৃত্যুর খবরটি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, অগ্নিদগ্ধ হওয়ার পর রাতেই মকবুলের ছোট ছেলে জুবায়ের মারা যায়। পরে ওই রাতেই মকবুল হোসেন ও তার পরিবারের আরও দুই সদস্যকে ঢাকা শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বুধবার বিকেলে মকবুল হোসেন মারা যান। এরপর রোববার সকালে সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় মকবুলের বড় ছেলে জয়ের মৃত্যু হয়। এর আগে মকবুলের স্ত্রীর গর্ভে থাকা সন্তানও মৃত্যুবরণ করেন। পরে অপারেশন করে সেই সন্তানকে বের করা হয়। শেষমেষ সাতদিন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মকবুলের পরিবারের বেঁচে থাকা শেষ সদস্য তার স্ত্রী রেখাও মৃত্যুবরণ করেন।জানা যায়, ২২ ফেব্রুয়ারি (মঙ্গলবার) রাত সোয়া ১০টার দিকে উপজেলা সদরের শরীয়তনগর এলাকায় একটি বহুতল ভবনে আগুনের ঘটনা ঘটে। এসময় নিহত মকবুল হোসেনের ছেলে জুবায়ের (৬) অগ্নিদগ্ধ হয়ে মারা যায়। এ ঘটনায় মকবুল হোসেন (৪০) ও তার স্ত্রী রেখা বেগম (৩২) এবং তাদের আরেক ছেলে জয় (১২) ও ভবনের বাসিন্দা জামিয়া রহমানসহ ১০ দগ্ধ হন। তারা মুমুর্ষূ অবস্থায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিভিন্ন হাসপাতাল ও ঢাকা শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন ছিলেন। পুলিশ জানায়, গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে আগুনের সূত্রপাত। সিলিন্ডারের সুইচ দেওয়ার অনেক পর দেয়াশলাই জ্বালানোয় আগুন ধরে বিস্ফোরণ হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here