সরাইল-নাসিরনগর-লাখাই আঞ্চলিক মহাসড়ক ঘেষে নিয়মিত ফেলা হচ্ছে ময়লা। ফলে ময়লার স্তুপ থেকে ছড়িয়ে পড়া দূর্গন্ধে অতিষ্ঠ এখন পথচারীরা। ওমিক্রন নামক ভাইরাসের ভয়াবহ বিস্তৃতির সময়ে সরাইলের ধর্মতীর্থ এলাকার ওই ময়লার স্তুপ এখন পথচারীদের জন্য শঙ্কার কারণ হয়েছে। আজ মঙ্গলবার দুপুরে সরজমিনে দেখা যায়, হাওর এলাকায় ওই মহাসড়কের ধর্মতীর্থ এলাকায় সড়কটি ঘেষে বিশাল ময়লার স্তুপ। মাছি উড়ছে। দূর্গন্ধ ছড়াচ্ছে চারিদিকে। নাক চেপে ধরে এ জায়গাটি পার হচ্ছে পথচারীরা। আর যাত্রীবাহী সিএনজি চালিত অটোরিকশার যাত্রীরাও ময়লার স্তুপের কাছে আসার আগেই কেউ রূমাল দিয়ে কেউ পড়নের কাপড় দিয়েই নাক ছাপছেন। নাসিরনগরের ভলাকূট গ্রামের রফিক (৪৩) নামের এক যাত্রী বলেন, ওমিক্রন ও করোনায় আক্রান্ত হওয়ার ভয়ে আমরা ভীত। স্বাস্থ্য বিভাগও বলছে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকতে। জীবাণু থেকে বাঁচতে স্যানিটাইজারের পাশাপাশি বাংলা সাবান দিয়ে হাত ধূঁয়ার কথা বলছেন। এমন একটি সময়ে বলতে গেলে সড়কের উপরই পঁচাবাসী ময়লা গুলো ফেলে মানুষের ক্ষতি করছে কারা? এদেরকে চিহ্নিত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় জনৈক পথচারী বলেন, এমন কিছু লোকজনকে এখানে ময়লা ফেলতে দেখেছি। তারাও সবসময় মানুষকে পরিস্কার থাকতে বলেন। আমি নাম বললে এলাকায় থাকতে পারব না। এই ময়লা গুলো মানুষের খুবই ক্ষতি করছে। পারলে এ গুলি সরানোর ব্যবস্থা করে হাজার হাজার পথচারীদের উপকার করূন। এখানে মাছ ধরতে আসা শিশুদের জীবন রক্ষা করূন। কালীকচ্ছ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. ছায়েদ হোসেন বলেন, আসলে বিষয়টি আমার জানা নেই। বর্তমান সময়ে এটা খুবই ক্ষতিকর বিষয়। মানুষ চলাচলের পথে কে বা কারা ময়লা ফেলে সেটা বের করার চেষ্টা করব।

মাহবুব খান বাবুল

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here