উৎসবমুখর পরিবেশে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জেলা আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। আইনজীবীদের এই ভোট উৎসবে যোগ দিয়েছেন আওয়ামী লীগ-বিএনপির জেলা পর্যায়ের শীর্ষ নেতারা।
বৃহস্পতিবার সকাল ৯টা থেকে শুরু হওয়া ভোট চলে বিকেল ৫টা পর্যন্ত। কোর্ট চত্বর দুপুর ১২টার দিকে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির স্থানীয় শীর্ষ নেতাদের পদচারণায় মুখর হয়ে ওঠে। জেলা আইনজীবী সমিতি ভবনের সামনে চা-পানের আড্ডায় খোশগল্পে মেতে ওঠেন আওয়ামী লীগ-বিএনপির নেতাকর্মীরা। তাদের আড্ডার ছবি ছড়িয়েছে ফেসবুকে। নানা মহলে চলছে আলোচনা। ওই চায়ের আড্ডায় উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহসভাপতি মো. হেলাল উদ্দিন, সহসভাপতি তাজ মো. ইয়াসিন ও হেলাল উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আল মামুন সরকার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল হক চৌধুরী মন্টু ও গোলাম মহিউদ্দিন খান খোকন। আর বিএনপির নেতাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির আহ্বায়ক জিল্লুর রহমান, সাবেক সভাপতি হাফিজুর রহমান মোল্লা কচি, আহ্বায়ক কমিটির সদস্য ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম, সদস্য সিরাজুল ইসলাম, আলী আজমসহ বিএনপির নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। এ ব্যাপারে জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি হাফিজুর রহমান মোল্লা কচি বলেন, ‘রাজনীতি হচ্ছে একটি প্ল্যাটফর্ম। তবে সামাজিক সম্প্রীতিটাই হচ্ছে বড়। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আগে এমন সামাজিক সম্প্রীতি ছিল। অভ্যন্তরীণ কারণে এটি নষ্ট হয়ে গেছে। আজ আইনজীবী সমিতির নির্বাচনে দুই দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে যে সম্প্রীতি দেখা গেছে, তা বজায় থাকুক।’ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আল মামুন সরকার বলেন, ‘এটাই ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সম্প্রীতির রাজনীতির ঐতিহ্য। দলীয় কার্যক্রমের বাইরে আওয়ামী লীগ-বিএনপির মধ্যে সামাজিক সম্পর্কের বন্ধন রয়েছে। দিন শেষে আমরা একই জেলার বাসিন্দা।’ তবে দলীয় চেয়ারপারসনকে কারাগারে রেখে নেতাদের এ ধরনের আড্ডার সমালোচনা করছেন বিএনপির অনেক নেতাকর্মী।

মোঃনিয়ামুল ইসলাম আকন্ঞ্জি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here