ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর সাব রেজিস্ট্রি অফিসের দূর্নীতি

দূর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের জিরো টলারেন্স নীতিতে সারা দেশব্যাপী চলছে দূর্নীতি বিরোধী অভিযান। সম্প্রতি রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে দূর্নীতি বিরোধী অভিযানে অনেক রাঘববোয়াল গ্রেপ্তার হয়েছে। এসব অভিযানের পরও ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর সাব রেজিস্ট্রি অফিসের অনিয়ম দূর্নীতির লাগাম ক্রমেই বেড়ে চলছে।
জানা যায়, সদর সাব রেজিস্ট্রি অফিসে সাব কাবলা, হেবা ঘোষনা, হেবাবিল এওয়াজ সহ যাবতীয় দলিলের ফরমেট নকল উত্তোলনের জন্য সরকারি ফি ৪ শত ৩৫ টাকা হলেও নেয়া হয় ৯শত ৩৫ টাকা। নরমাল (হাতে লেখা) নকলের সরকারী ফি ৫ শত ৩৫ টাকা হলেও নেয়া হয় ১ হাজার ৩৫ টাকা।
সরকারি ফির নামে অতিরিক্ত টাকা গুলো ভাগবাটোয়ারা হয় সাব রেজিস্টার ৯০ টাকা, জেলা রেজিস্ট্রার ৯০ টাকা, দলিল লেখক সমিতি ৯৫ টাকা, রেকর্ড কিপার ৯০ টাকা, নকল নবিশ সমিতি ৫০ টাকা, হেড ক্লার্ক ২৫ টাকা, তল্লাশকারক সমিতি ২০ টাকা, ঝাড়ুদার ২০ টাকা, দলিল লেখক সমিতির সভাপতি ১০ টাকা ও সাধারন সম্পাদক ১০ টাকা করে প্রতি দলিলে মাসোহারা পান।এসব অপকর্মের বিষয়ে অফিসে কর্মরত কর্মচারী বা দলিল লেখক সমিতির কোন সদস্য প্রতিবাদ করলে তাদেরকে নানান ভাবে হয়রানি করেন এই চক্রটি।
একটি সূত্র জানায়, প্রতি বছর ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর সাব রেজিস্ট্রি অফিসে ২০/২৫ হাজার নকল সরবরাহ করা হয়। এ হিসেব অনুযায়ী প্রতি বছর দলিলের নকল নিতে আসা জনসাধারণের কাছ থেকে অবৈধভাবে নেয়া হচ্ছে ২০ লাখ থেকে ২৫ লাখ টাকা।
এদিকে আরেকটি সূত্র জানায়, সিসি লোনের ব্যাংক মরগেজ এর ঋনের জন্য নো অবজেকশন সার্টিফিকেট (এনওসি) বা অনাপত্তিপত্র নিতে সরকারি ফি ৩ শত ১৫ টাকা হলেও নেয়া হয় ১৫শত থেকে ২ হাজার টাকা। এই টাকা গুলো লেনদেন হয় তল্লাশকারকদের মাধ্যমে। যার ভাগবাটোয়ারা পান সাব রেজিস্টার, জেলা রেজিস্ট্রার, রেকর্ড কিপার।
তল্লাশকারকগন প্রতি বছরের তল্লাশির জন্য গ্রাহকের কাছ থেকে নেন ১শত টাকা, কিন্তু এর সরকারি ফি হচ্ছে মাত্র ১৫ টাকা, সরকারি ফির নাম করে তল্লাশকারকরা গ্রাহকের কাছ থেকে অতিরিক্ত নেন ৮৫ টাকা যা পুরোটাই অবৈধ।
এ ব্যাপারে জানতে সদর সাব রেজিস্টার মোস্তাফিজ আহমেদ এর মুঠোফোনে একাধিকবার কল দিয়েও কলটি রিসিভ না করায় তার বক্তব্য নেওয়া যায়নি।
এছাড়াও জমির শ্রেনী পরিবর্তন করে সরকারের রাজস্ব ফাঁকিরও অভিযোগ রয়েছে সাব রেজিস্টার সহ অনেক কর্মচারী কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে।

সুত্র—ওয়াইট নিউজ ২৪ ডট কম

digital

মন্তব্য করুন

আপনার ই-মেইল এ্যাড্রেস প্রকাশিত হবে না। * চিহ্নিত বিষয়গুলো আবশ্যক।

Next Post

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নন্দনপুরে জমে উঠেছে ধানের চারার হাট।

বৃহস্পতি অক্টো. 3 , 2019
আশেক মান্নান হিমেলঃব্রাহ্মণবাড়িয়া নন্দনপুরে বসেছে ঐতিহ্যবাহী ধানের চারার হাট। বিভিন্ন জাতের ধানের চারা নিয়ে কৃষক ও ব্যাপারীরা হাটে আসছে। উৎপাদন […]

তাজা খবর

শিরোনাম