মঙ্গলবার , ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ,৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সাবেক চেয়ারম্যানের দাপটে অসহায় ৯০ বছরের বৃদ্ধ

 সাবেক চেয়ারম্যানের দাপটে অসহায় ৯০ বছরের বৃদ্ধ

ডিঃব্রাঃ ডেস্কঃ
৯০ বছরের বৃদ্ধ কৃষক রজব আলী। কৃষি কাজ করেই তার পরিবারের অন্নসংস্থান হয়। ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার পাকশিমুল ইউনিয়নে এই বৃদ্ধ কৃষক অন্তত ৬০ বিঘা জমি চাষ করেন প্রতিবছর। এর থেকে প্রতিবছর প্রায় হাজার মন ধান উৎপাদন হতো। এই জমির উৎপাদিত ফসল দিয়ে চলে তার ২১জনের পরিবার। কিন্তু এবছর স্থানীয় প্রভাবশালীদের বাধার মুখে সেই জমি গুলো চাষ করতে পারেনি। অথচ তার জমির চারপাশের জমি গুলোতে ফসলের সবুজ সমাহার। বৃদ্ধ রজব আলীর পরিবার অভিযোগ, স্থানীয় সাবেক চেয়ারম্যান আবুল কাশেম এই সেচ প্রকল্পের পানি তো দেননি, ১০লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করেছেন।

বৃদ্ধ কৃষক রজব আলী বলেন, পাকশিমুল ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান আবুল কাশেম ওরফে কাছম আলী চেয়ারম্যানের বাধায় আমার ৬০ বিঘা জমি চাষাবাদ করতে পারিনি। তারা গত ৫ জানুয়ারি সকালে গ্রামের পূর্ব দিকে ফসলি মাঠে ভূঁইয়ার চরের আমার সেচ স্কিম জোরপূর্বক দখল করে নেন। আমাকে ও আমার সন্তানদের জমি চাষাবাদ করতে মাঠে নামতে দিচ্ছেন না তারা। আমার বীজ তলা দখল করে নিয়ে তারা একটি জমি চাষ করে ফেলেছেন। কৃষক রজব আলী আরও বলেন, জমি চাষ করতে না পারায় এ বছর আমি অন্তত একহাজার মণ ধান থেকে বঞ্চিত হয়েছি। আমি প্রশাসনের কাছে সুষ্ঠু বিচার প্রার্থনা করছি।

এই ঘটনায় বৃদ্ধ কৃষক রজব আলীর ছেলে সলতু মিয়া বাদি হয়ে গত ২৬ জানুয়ারি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় সাবেক চেয়ারম্যান আবুল কাশেম ওরফে কাছম আলী সহ ৯ জনের নাম উল্লেখ করে আরও অজ্ঞাত ৪/৫জনকে আসামী করা করা হয়েছে। মামলার এজহারে অভিযোগ করে বলা হয়, গত ৫ জানুয়ারি সেচের পানি দিতে বাধা দেয়। এসময় ১০লক্ষ টাকা চাঁদা দাবি করেন ও কয়েকজনকে মারধোর করেন। এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে আদালত পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেশটিগেশন (পিবিআই) কে মামলাটি তদন্তের নির্দেশ দেন।

এই বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার শাখাওয়াত হোসেন জানান, আমাদের কাছে মামলার নথি এসে পৌছার পর নিয়ম অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

সাবেক চেয়ারম্যান আবুল কাশেমের বিরুদ্ধে বৃদ্ধের ছেলে মামলা করায় তার লোকজন রজব আলীর পরিবারকে মামলা তুলতে হুমকি দেন। মামলা দায়েরের পর দিন বৃদ্ধের ছেলে সলতু মিয়া স্থানীয় বাজারে বাজার করতে গেলে সাবেক চেয়ারম্যানের লোকজন হামলা করার চেষ্টা করে। এই ঘটনা পর দিন আদালতের সহযোগিতা চেয়ে আরও একটি মামলা দায়ের করা করে রজব আলীর ছেলে।

রজব আলীর আরও এক ছেলে আঙ্গুর মিয়া জানান, এ ঘটনায় কাছম আলী চেয়ারম্যানের পক্ষ নিয়ে একতরফা সালিশ-বৈঠক করেন অরুয়াইল এলাকার সালিশকারক আবু তালেব মিয়া, কুতুবউদ্দিন ভূঁইয়াসহ কয়েকজন। তারা অন্যায়ভাবে একটা রায় দেন; কিন্তু আমরা এ রায় মেনে নেয়নি।

এ বিষয়ে অভিযুক্ত সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কাশেম গণমাধ্যম কর্মীদের বলেন, কৃষক রজব আলীর অভিযোগ সঠিক নয়। তাদের জমি চাষাবাদে আমি কোনো বাধা দেয়নি। সেচ স্কিমের মিটার আমার নামে। ২২ বছর যাবত রজব আলী এ সেচ স্কিম চালিয়েছেন। এরআগে তিন বছর এ সেচ স্কিম আমি চালিয়েছি। কৃষকদের অনুরোধে সেচ স্কিম আমি ফিরিয়ে নিয়েছি। এখানে কোন প্রকার চাঁদা চাওয়া হয়নি।

সরাইল থানার অফিসার ইনচার্জ আল মামুন মুহাম্মদ নাজমুল আহমেদ বলেন, বিষয়গুলো আমাদের জানা নেই। কেউ আমাদের কাছে এ বিষয়ে অভিযোগ করেননি। আমরা বিষয়গুলোর খোঁজ নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।

digital

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *