সরাইলে ফেন্সিডিলসহ মাদক সম্রাট গ্রেপ্তার

0

সরাইল থানা পুলিশের অভিযানে আমদানি নিষিদ্ধ ভারতীয় ৩৪৫ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার করেছে। মাদকের গডফাদার ও সম্রাট খ্যাত আক্তার হোসেন গ্রেপ্তার। গত শনিবার দিবাগত গভীর রাতে নোয়াগাঁও ইউনিয়নের বাড়িউড়া গ্রামের আক্তারের বাড়ি থেকে ফেন্সিডিল উদ্ধার হয়েছে। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, বাড়িউড়া গ্রামের আবদুল আহাদের ছেলে আক্তার। লোক চক্ষুর অন্তরালে দীর্ঘদিন ধরে মাদকের ব্যবসা করে আসছে। আক্তার মাদকের বড় কারবারি।

স্থানীয় কিছু লোক ও দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে মাদক ব্যবসায়িরা এসে আক্তারের বাড়ি থেকে মাদকের বড় বড় চালান ক্রয় করে নিত। তারা আবার ওই গুলো বিভিন্ন কায়দায় গ্রামেগঞ্জে বিক্রি করছে। কারবারিরা কাঁচা টাকার মালিক হলেও ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে দেশের যুব সমাজ ও শিক্ষার্থীরা। আক্তারের মাদকের রাজত্ব দীর্ঘদিনের। গত শনিবার গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সরাইল থানা পুলিশ নিশ্চিত হয় আক্তার মাদকের একটি বড় চালান পার্টির কাছে বিক্রির প্রস্তুতি নিচ্ছে। এর আগেই কর্মকর্তা ইনচার্জ (ওসি) আল-মামুন মোহাম্মদ নাজমুল আহমেদের নেতৃত্বে পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) শফিকুল ইসলাম, এস আই গৌতম চন্দ্র দে, এস আই শাহাদাৎ হোসেন ও এ এস আই আলাউদ্দিন সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে আক্তারের বাড়ির আশপাশে অবস্থান নিয়েছিল।

রাত দেড়টার পর পার্টিকে মাল দেওয়ার প্রস্তুতিকালে পুলিশ হাতেনাতে ধরে ফেলে আক্তারকে। পরে আক্তারের দেয়া তথ্য মতে ওই বাড়িতে অভিযান চালিয়ে মোট ৩৪৫ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার করে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি জানান, আক্তারের মাদক কারবারের সাথে অনেক রাঘব বোয়াল জড়িত আছে। পর্দার আড়ালে রয়েছে কতিপয় রাজনৈতিক নেতাও। এ ছাড়া আক্তার অনেক কিছু কন্ট্রোল করেই দীর্ঘদিন ধরে এ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। অনেকে অনেক কিছুু জানে। কিন্তু ভয়ে কেউ মুখ খুলেনি। এস আই শাহাদাৎ হোসেন বাদী হে আক্তারের বিরূদ্ধে মাদকদ্রব্য নিন্ত্রণ আইনে মামলা করেছেন। সরাইল থানার কর্মকর্তা ইনচার্জ (ওসি) মুহাম্মদ নাজমুল আহমেদ বলেন, আক্তার ভদ্রতার মুখোশ পড়ে মাদক ব্যবসা চালিয়ে আসছিল। সে মাদকের গডফাদার। দেশের বিভিন্ন স্থানে মাদক পাচার করাই তার ব্যবসা।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে