মঙ্গলবার , ১১ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ,২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতের তান্ডব ৪৯ মামলায় আসামী ৩৫ হাজার, গ্রেপ্তার-৫৫

 ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতের তান্ডব ৪৯ মামলায় আসামী ৩৫ হাজার, গ্রেপ্তার-৫৫

ডিঃব্রাঃ ডেস্কঃ
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতের তান্ডবের ঘটনায় ক্ষতিগ্রস্থ প্রতিষ্ঠানগুলোর পক্ষ থেকে ৪৯টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এর মধ্যে শুধুমাত্র সদর মডেল থানাতেই ৪৩টি মামলা দায়ের করা হয়। এছাড়া আশুগঞ্জ থানায় ৩টি, সরাইল থানায় ২টি ও আখাউড়া রেলওয়ে থানায় ১টি মামলা দায়ের করা হয়।

শুক্রবার দুপুরে পুলিশ সুপার কার্যালয়ের ডিআই-১ ইমতিয়াজ আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, জেলায় মোট ৪৯টি মামলায় ৩৫ হাজারেরও বেশি লোককে আসামী করা হয়েছে। এর মধ্যে মাত্র ৫৫ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে হরতালের দিন বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল ভাঙচুরকারী আরমান আলিফ-(২২)। গত ৪ মে রাতে সদর উপজেলার বিশ্বরোড এলাকা থেকে
র‌্যাব-১৪ এর একটি দল গ্রেপ্তার করে। পরে র‌্যাব সদস্যরা ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার কাজীপাড়ায় আরমান আলিফের ভাড়া বাসায় তল্লাশী চালিয়ে বঙ্গবন্ধুর ম্যুরাল
ভাঙ্গার কাজে ব্যবহৃত একটি শাবল, একটি বিদেশী পিস্তল, ২টি ম্যাগাজিন এবং ৪ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করে।

এর আগে ম্যুরাল ভাঙচুরের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়। গ্রেপ্তারকৃত আরমান আলিফ জেলার নাসিরনগর উপজেলার চাতলপাড় ইউনিয়নের ফুলকারকান্দি গ্রামের শুক্কুর মিয়ার ছেলে। বর্তমানে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর এলাকার কাজীপাড়ায় ভাড়া বাসায় বসবাস করে।

পুলিশ জানায়, তান্ডবের সময় ভিডিও ফুটেজ ও স্থির ছবি দেখে হামলাকারিদের শনাক্ত করা হচ্ছে। এরই মধ্যে বেশ কয়েকজনকে শনাক্ত করে তাদেরকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। হেফাজত নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে হামলায় জড়িত থাকার অভিযোগ প্রমাণিত হলে তাদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়া হবে।

পুলিশ ও মামলার নথিপত্র সূত্রে জানা গেছে, গত ২৬ থেকে ২৮ মার্চ পর্যন্ত ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ঘটে যাওয়া তান্ডবে ৪৯টি মামলার মধ্যে সদর থানায় ৪৩টি, আশুগঞ্জ থানায় তিন’টি, সরাইল থানায় দু’টি ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলওয়ে স্টেশনে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় আখাউড়া রেলওয়ে থানায় একটি মামলা করা হয়। ৪৯টির মধ্যে ২৮৮ জনের নাম উল্লেখ করা হয়। বাকি মামলায় সবাই ‘অজ্ঞাতনামা দুষ্কৃতিকারী’। কোনো কোনো মামলায় ‘অজ্ঞাতনামা কওমি মাদ্রাসাছাত্র-শিক্ষক ও তাঁদের অনুসারী দুষ্কৃতিকারীদের’ কথা উল্লেখ করা হয়। তবে কোনো মামলাতেই হেফাজতের কোনো নেতা-কর্মীর নাম নেই।

digital

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *