শনিবার , ২৭শে ফেব্রুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ,১৪ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ভুয়া দাতা সেজে দলিল বানানোর চেষ্টায় লেখকসহ গ্রেফতার-৩ 

 ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ভুয়া দাতা সেজে দলিল বানানোর চেষ্টায় লেখকসহ গ্রেফতার-৩ 

ডিঃব্রাঃ আশিক মান্নান হিমেলঃ ব্রাহ্মনবাড়িয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় জমির জাল দলিল বানানোর চেষ্টার ঘটনায় দলিল লেখকসহ ৩ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর সাব রেজিষ্ট্রি অফিসে ভুয়া দাতা সেজে জায়গা দলিল করে নেয়ার ঘটনা ধরা পরার পর রাতে জমির ভুয়া বিক্রেতা,দলিল লেখক ও সনাক্তকারীসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা দেন সাব রেজিষ্ট্রি অফিসের মোহরার জয়ন্তী রানী চক্রবর্তী।

এই মামলায় ভুয়া দলিল দাতা বিজয়নগর উপজেলার দক্ষিন রাজাবাড়ি গ্রামের সাধন সরকার,সনাক্তকারী মো: রুস্তম আলী এবং দলিল লেখক কাজী সাহারুল বিএস ৪৪৫৭ ইসলামকে গ্রেফতার করে সদর মডেল থানা পুলিশ। মামলা বিবরণ ও সাব-রেজিষ্টার অফিস সূএে জানা যায় বৃহস্পতিবার দুপুরে সদর সাব রেজিষ্টারের এজলাসে বিজয়নগর উপজেলার চর-পাচগাও মৌজার বিএস চূড়ান্ত ৭২৭ খতিয়ানভূক্তদাগের ৩৫ শতক জমি নিবন্ধনের জন্যে দাখিল করা হয়। খতিয়ানে জমির মুল মালিক , হিসেবে মৃত চন্দ্র কিশোর শর্মার ছেলে হরেন্দ্র কান্ত শর্মার নাম উল্লেখ থাকলেও নিবন্ধনের জন্যে দলিল দাখিল করেন সাধন শর্মা। সে তার জাতীয় পরিচয়পত্রে পিতা অবচরণ সরকারের পরিবর্তে হরেন্দ্র কান্ত শর্মা লিপিবদ্ধ করে।

সাব রেজিষ্টার মো: ইয়াছিন আরাফাতের সন্দেহ হলে তিনি এ্যাপসের সাহায্যে জাতীয় পরিচয়পত্র পরীক্ষা করি ভুয়া বলে নিশ্চিত জন। এরপরই সাধন সরকার ও মো: রুস্তম আলীকে আটক করে পুলিশের হাতে তুলে দেয়া হয়। রাতে মামলা হলে পুলিশ গ্রেফতার করে দলিলটির লেখক কাজী সাহারুল ইসলামকে। দলিল গ্রহিতা হিসেবে নাম রয়েছে চর ইসলামপুরের মৃত মন্ডল হোসেনের ছেলে মো: ইয়াছিন মিয়ার। তাকে ছাড়াও এই মামলায় আসামী করা হয় শহরের মেড্ডার নয়ন ঋষি ও বিজয়নগরের ইসলামপুরের মো: নূরুল ইসলামকে। দলিলে জমির মুল্য দেখানো হয় ১লাখ ৮হাজার টাকা। এ ব্যাপারে সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: আব্দুর রহিম বলেন, এ ঘটনায় থানায় ৬ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এজাহার নামীয় ৩ আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকীদের গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত আছে।

digital

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *