সোমবার , ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ,৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নৌকা ডুবিতে নিহত ২২জন, ২০ জনের পরিচয় শনাক্ত

 ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নৌকা ডুবিতে নিহত ২২জন, ২০ জনের পরিচয় শনাক্ত

ডিঃব্রাঃ ডেস্কঃ
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলায় যাত্রীবোঝাই নৌকার সঙ্গে বালুবোঝাই ট্রলারের সংঘর্ষের ঘটনায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২২ জনে দাঁড়িয়েছে। এর মধ্যে ২০ জনের নাম-পরিচয় শনাক্ত করেছে জেলা প্রশাসন।

এ রিপোর্ট পর্যন্ত ২২ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। পরিচয় মিলেছে ২০ জনের । নিহতরা হলেন- বিজয়নগর উপজেলার মালু মিয়ার স্ত্রী মঞ্জু বেগম (৬০) ইউনিয়নের আদমপুর গ্রামের পরিমলের স্ত্রী অঞ্জনা ও তার মেয়ে তিতিবা (৩), চম্পকনগর ইউনিয়নের খুদাইপাড়া গ্রামের কামাল মিয়ার মেয়ে মাহিদা আক্তার (৫), পৈরতলা এলাকার ফারুক মিয়ার স্ত্রী কাজুলি বেগম, আব্দুল হাসিমের মেয়ে কমলা বেগম, আদমপুর গ্রামের অকিল বিশ্বাসের স্ত্রী অঞ্জলি বিশ্বাস (৫০), নুরপুর গ্রামের রাজ্জাকের মেয়ে মিনা বেগম, একই গ্রামের জজ মিয়ার মেয়ে ও তার স্ত্রী ফরিদা বেগম (৪০), ফতেহপু গ্রামের জহিরুল হক ভুইয়ার ছেলে আরিফ বিল্লাহ (২০), মনিরপুর গ্রামের আরিফ বিল্লা, একই গ্রামের আব্দুল বারীর ছেলে সিরাজুল ইসলাম,  ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শহরের দাতিয়ারা এলাকার মোবারক মিয়ার মেয়ে তাসমিয়া মীম (২২), ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার ভাটপাড়া গ্রামের ঝাড়ু মিয়ার মেয়ে শারমিন (১৮), ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার নরসিংসার ইউনিয়নের গাছতলা গ্রামের জামাল মিয়ার ছেলে আজিম সার, সদর উপজেলার সাদেকপুর গ্রামের মুরাদ হোসেনের ছেলে তানভীর হোসেন (৮), শহরের দক্ষিণ পৈরতলার আবু সাইদের স্ত্রী মোমেনা বেগম (৫৫), সদর উপজেলার চিলকুট গ্রামের আব্দুল্লার মেয়ে তাকওয়া (৮), ময়মসসিংহ জেলার খোকন মিয়ার স্ত্রী ঝর্ণা বেগম (৫৫)।

২৫০ শয্যাবিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে চলছে নিহতদের শনাক্তের কাজ। সেখানে মরদেহ শনাক্তের পর স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হচ্ছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা প্রসাশক হায়াত উদ দৌলা খান বলেন সকাল পর্যন্ত ২২ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নৌকা ডুবির ঘটনায় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রুহুল আমিনকে প্রধান করে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এছাড়া নিহত প্রত্যেক পরিবারকে লাশ দাফনের জন্য ২০ করে হাজার টাকা দেওয়া হবে। তিনি আরও জানান, নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। উদ্ধার অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

এর আগে শুক্রবার (২৭ আগস্ট) বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে উপজেলার লইছকা বিলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় বহু হতাহতের আশঙ্কা করা হচ্ছে।

পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান জানান, বিজয়নগরের চম্পকনগর থেকে বিকেল সাড়ে ৪টায় অন্তত ১২০ জন যাত্রী নিয়ে ছেড়ে আসে ট্রলারটি। পথে একটি বালুবোঝাই ট্রলারের সঙ্গে সংঘর্ষ হলে নৌকাটি ডুবে যায়। সাঁতরে কূলে কিছু লোক উঠতে পারলেও অনেকেই এখন পর্যন্ত নিখোজ আছেন। ট্রলারের চালকসহ আমরা তিন জনকে গ্রেফতার করেছি। তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

digital

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *