ফেন্সিডিলসহ সাবেক জেলা ছাত্রলীগ নেতা মাসুম বিল্লাহ সহ গ্রেপ্তার ২

0

ডিঃব্রাঃ ডেক্সঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাসুম বিল্লাহ (৩২) ও তার সহচর এনাম হক (৩০) কে মাদকসহ গ্রেপ্তার করেছেন সরাইল থানার এ এস আই মো. আলাউদ্দিন। পুলিশের হাত থেকে ছুটে যেতে প্রথমে গালমন্দ ও পরে কিল ঘুষি দেওয়ার অভিযোগ ওঠেছে ছাত্রলীগ নেতার বিরূদ্ধে।

মঙ্গলবার বিকাল ৪টার দিকে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের কুট্রাপাড়া উচ্চবিদ্যালয়ের সামনে এ ঘটনা ঘটেছে। পরে কর্মকর্তা ইনচার্জ (ওসি) নিজে গিয়ে মাসুমকে থানায় নিয়ে আসেন। মূহুর্তের মধ্যে থানার ভেতরে ও বাহিরে মাসুমের শতাধিক সমর্থক অবস্থান নেন। ছবি ওঠানোর জন্য থানার ডিএসবিকে প্রকাশ্যে গালমন্দ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে মাসুমের ছোট ভাই নাঈম বিল্লাহ’র বিরূদ্ধে। একসময় ভরকে যান ওসি। ওই ছাত্রলীগ নেতাকে ছাড়িয়ে নেয়ার তদবিরের চাপে মুখ খুলতে চাননি ওসি।

এমনকি আহত এ এস আই আলাউদ্দিনও ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে চুপসে যান। বিকাল ৪টায় গ্রেপ্তার করলেও সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত মাসুমের বিষয়ে মুখ খুলেননি সরাইল থানা পুলিশ। সন্ধ্যা ৭টার পর জানিয়েছেন মামলা হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শী স্থানীয়রা জানায়, মাদকের নিয়মিত অভিযানে পোশাকের উপর পাঞ্জাবী পড়ে সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে মহাসড়কের কুট্রাপাড়া এলাকায় দায়িত্ব পালন করছিলেন এএসআই মো. আলাউদ্দিন। সন্দেহ হলে আরোহীসহ দুইজনের একটি কাল রং-এর মটরবাইককে দাঁড়াতে সিগনাল দেন।

মটরবাইকের চালক মাসুম বিল্লাহ নিজের পরিচয় দিয়ে চলে যাওয়ার চেষ্টা করেন। আলাউদ্দিন তা হতে দেননি। দু’জনের মধ্যে বাকবিতন্ডা শুরূ হয়। একপর্যায়ে মাসুম বিল্লাহর দেহ তল্লাশী করে বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার করে পুলিশ। মাদক বহনের দায়ে গ্রেপ্তার করতে চাইলে পুলিশকে কিলঘুষি মারতে থাকে মাসুম। তাদের সোর চিৎকারে ঘটনাস্থলে শতাধিক লোক জড়ো হয়।

সরাইল থানার কর্মকর্তা ইনচার্জ নাজমুল হোসেন নিজে গিয়ে মাসুমকে থানায় নিয়ে আসেন। মূহুর্তের মধ্যে থানায় হাজির হন সরাইল উপজেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রোকেয়া বেগম, পুরূষ ভাইস চেয়ারম্যান মো. আবু হানিফ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজের সাবেক ভিপি মো. হাসান ও জেলা ছাত্রলীগের নেতা কর্মী ও সমর্থকরা। থানার বাহিরে ভেতরে মটরবাইক সহ শতাধিক সমর্থক অবস্থান নেয়। বিকাল সাড়ে ৪ টার দিকে থানায় দেখা গিয়ে যায় ওসি’র কক্ষে বসে কথা বলছেন মাসুম। কিছুক্ষণ পর মাসুমকে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান নিয়ে যান পুলিশ পরিদর্শকের কক্ষে। সেখান থেকে তড়িৎ তাকে নিয়ে যান এসআই-দের বসার কক্ষে।

ওসি সহ সকল পুলিশ সদস্যদের মধ্যে বিরাজ করছে অস্থিরতা। আর গণমাধ্যম কর্মীদের এড়িয়ে চলার একটা প্রবণতা। আগোন্তক লোকজন ও পুলিশ সদস্য কেউই গণমাধ্যম কর্মীদের সামনে মুখ খুলতে নারাজ। বিকাল ৫টার দিকে জেলা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ বহন করে একটি গাড়ি থানার ভেতরে প্রবেশ করে। এ এস আই মো. আলাউদ্দিন বলেন, মাসুমের মটরবাইককে সিগনাল দেওয়া মাত্র আমাকে গালমন্দ শুরূ করে। আটকের পর তার দেহ থেকে ৬ বোতল ফেন্সিডিল উদ্ধার করি। আমার কাছ থেকে ছুটে যেতে আমাকে কিলঘুষি মারতে থাকেন মাসুম।

পরে ওসি স্যারের সহায়তায় তাকে থানায় নিয়ে আসেন। পুলিশের হেফাজতে থাকা মাসুম বিল্লাহ নিজেকে নির্দোষ দাবী করে বলেন, আমি পুলিশকে মারধর করিনি। তবে একটু বার্গেনিক হয়েছে। আপনাকে পুলিশ কি মারধর করেছে? এমন প্রশ্নের উত্তরে বলেন, আমার চেহারা দেখে বুঝতে পারছেন না? সরাইল সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আনিছুর রহমান বলেন, মাদক দ্রব্য বহন ও পুলিশের কর্তব্য কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগে মাসুম বিল্লাহর বিরূদ্ধে সরাইল থানায় মামলা হয়েছে। এর আগেও তার বিরূদ্ধে সদর মডেল থানায় ২টা ও বিজয়নগর থানায় ১টি মোট ৩টি মামলা রয়েছে। তার ব্যবহৃত মটরবাইকটি জব্দ করা হয়েছে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে