সোমবার , ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ,৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পায়ে হাঁটার রাস্তার দাবীতে সরাইলে সরকারি অফিসের দেওয়াল নির্মাণে বাঁধা কর্তৃপক্ষ অনড়

 পায়ে হাঁটার রাস্তার দাবীতে সরাইলে সরকারি অফিসের দেওয়াল নির্মাণে বাঁধা কর্তৃপক্ষ অনড়

ডিঃব্রাঃ
সরাইলের চুন্টা ইউনিয়ন ভূমি অফিস। স্থাপনের ৫০ বছর পর নিরাপত্তার স্বার্থে নির্মাণ করছেন প্রতিরক্ষা দেওয়াল। সড়কের দিকে শুধু একটি ফটক রেখে চারিদিকে বন্ধ করে দেওয়ার পরিকল্পনায় এগুচ্ছেন কর্তৃপক্ষ। কিন’ স্থানীয় ইউপি, বাজার কমিটি, মসজিদ কমিটিসহ সাধারণ লোকজন দীর্ঘদিন ধরে চলমান পায়ে হাঁটার রাস্তা রেখে দেওয়ালটি নির্মাণের দাবী জানিয়ে আসছিলেন। রাস্তা বন্ধ করে কাজ করাকালে আজ শনিবার কাজে বাঁধা দেয় স্থানীয় লোকজন।

লোকজনের চাপের মুখে কাজ বন্ধ করলেও তত্বাবধায়ক সুমন মিয়া বলছেন নির্বাহী কর্মকর্তা ও এসিল্যান্ড মহোদয় শুধু সড়কের দিকে একটি ফটকের জায়গা রেখে দেওয়াল নির্মাণের নির্দেশ দিয়েছেন। এটা সরকারি সিদ্ধান্ত। তাই তাদের নির্দেশ মতই চলবে কাজ।

আজ শনিবার সকালে সরজমিনে দেখা যায়, চুন্টা ভূমি অফিসের চারিদিকে সীমানায় প্রতিরক্ষা দেওয়াল নির্মাণের কাজ চলছে। ভূমি অফিস সংলগ্ন উত্তর দিকে বাজার। দক্ষিণ দিকে ইউনিয়ন পরিষদের কমপ্লেক্স ও মসজিদ।

বাজারের দিকে দেওয়াল নির্মাণে বাঁধা দিচ্ছেন স্থানীয় লোকজন। সেখানে বাজার কমিটি, মসজিদ কমিটি ও ইউনিয়ন পরিষদের লোকজন ছিলেন। বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো. ইউসুফ মিয়াসহ উপস্থিত লোকজন বলেন, ৫০ বছরের এ রাস্তা বন্ধ করলে লোকজন বাজারে, ঈদগাহ’র মাঠে ও মসজিদে যাতায়ত করতে পারবে না। বড়াইল ও করাতকান্দি এলাকার ৪-৫ হাজার লোক সমস্যায় পড়বেন।

সেখানকার শিক্ষার্থীদের যাতায়তেও প্রতিবন্ধকতা তৈরী হবে। পুকুর থেকে ওজু করে মুসল্লিরা যে রাস্তা দিয়ে আসেন সেটিও খোলা রাখার দাবী জানিয়েছেন তারা। তবে উপসহাকারি ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তার দফতর সূত্র জানায়, চুন্টা ভূমি অফিসের জায়গা এস এ খতিয়ান মূলে ৫৮ শতক। যার সাবেক দাগ-২৩৭৯। তবে হাল দাগ নম্বর ৫১৮১ অনুসারে মোট জায়গা ৫২ শতক। বাকি ৬ শতক জায়গা আশপাশে কোথায় ঢুকে গেছে। খোলামেলা থাকায় সামনের জায়গায় ময়লা ফেলে। প্রসাব পায়খানা করে।

অনেকে দখল করার চেষ্টাও করে। উপজেলার উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ ও জেলা প্রশাসক মহোদয়ের সিদ্ধান্ত মোতাবেক অফিসের প্রতিরক্ষা দেওয়াল নির্মাণ কাজ চলছে। দেওয়াল নির্মাণকালে অফিসের ভেতর দিয়ে পথের ব্যবস্থা রাখার দাবী করছেন স্থানীয় লোকজন। কিন্তু আমাদেরকে সরকারি অফিসের ভেতর দিয়ে কোন পথ না রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এই সিদ্ধান্তের বাহিরে যাওয়া কোন ভাবেই সম্ভব নয়।

চুন্টা ইউপি চেয়ারম্যান ও বাজার কমিটির সভাপতি শেখ মো. হাবিবুর রহমান বলেন, এক সময় ভূমি অফিসটি অন্য জায়গায় ছিল। নানাবিধ সমস্যার কারণে স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় এখানে এসেছেন। জায়গাটিও ছিল ব্যক্তি মালিকানা। দেওয়াল নির্মাণে কোন আপত্তি নেই। এখানকার কয়েক হাজার মানুষের আবেদন পরিষদ সংলগ্ন পূর্ব পাশের ৫০ বছর আগের রাস্তাটি যেন বন্ধ না হয়।

মসজিদের উত্তর পাশের রাস্তাটি যেন ঠিক থাকে। প্রধানমন্ত্রী যেখানে মানুষের দূর্ভোগ লাঘবে আন্তরিক। সেখানে জনস্বার্থে আমার জনগণের দাবী ২টি বিবেচনায় নেওয়ার জন্য ইউএনও মহোদয়কে অনুরোধ করছি। এ বিষয়ে কথা বলতে সহকারি কমিশনার (ভূমি) ফারজানা প্রিয়াংকার মুঠোফোনে একাধিকবার ফোন দিয়েও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

মাহবুব খান বাবুলঃ

digital

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *