মঙ্গলবার , ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ,৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

তরুণ কবি তনন হত্যার প্রতিবাদে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

 তরুণ কবি তনন হত্যার প্রতিবাদে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

ডিঃব্রাঃ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরগরের তরুণ কবি সৈয়দ মোনাব্বির আহমেদ তনন হত্যার প্রতিবাদে (শুক্রবার, ৪ ডিসেম্বর ২০২০ খ্রি.) সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে একটি মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত মানববন্ধনে বাংলাদেশের বিশিষ্ট কবি ও সাহিত্যকদের পক্ষে ৬ দফা দাবী উপস্থাপন করা হয়।

বাংলাদেশ চলচিত্রশিল্পের বিশিষ্ট অভিনেতা ও কবি, তনন মঞ্চের আহ্বায়ক এবিএম সোহেল রশিদ এর সভাপতিত্বে ও তনন মঞ্চের আহ্বায়ক কমিটির সদস্য সচিব, কবি ও সংগঠক মুসলেহ উদ্দিন এর পরিচালনায় উক্ত মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন ড. শরীফ সাকী, কবি ও সংগঠক ইসতিয়াক হোসেন, কবি বেলাল হাওলাদার, কবি জহিরুল হক বিদ্যুৎ, কবি মো. সোহাগ, কবি ফেরদৌসী আক্তার নদী, কবি বজলুল করিম, কবি নার্গিস আক্তার পপি, কবি রুস্তম আলী, কবি লুৎফর রহমান রিফাত, কবি একে আজাদ, কবি আসাদুজ্জামান রাব্বি প্রমুখ। মানববন্ধন কর্মসূচির সহযোগিতায় ছিলো বাংলাদেশ অনলাইন লিটারেচার গ্রুপস ইউনিটির সভাপতি কবি জিয়াউদ্দিন জেইন।

সভায় বক্তগণ বলেন, প্রভাবশালীর মদদে বর্বরোচিত ঘটনার মাধ্যমে তননের মতো কলম সৈনিককে হত্যা করে বুদ্ধিবৃত্তিক চর্চা কখনো দমিয়ে রাখা যায়নি, আর যাবেও না। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে সুশীলসমাজের অগুনিত আলোকিত বুদ্ধিজীবীকে হত্যা করা হয়েছিল। তারই ধারাবাহিকতায় এখনো দেশের কোথাও কোথাও চিন্তাশীল ও সৃষ্টিশীল মানুষদের নির্মম ভাবে প্রকাশ্যদিবালোকে হত্যা করা হচ্ছে। ব্রাহ্মণবাড়িয়া কবি তনন হত্যা যেন তারই ধারাবাহিকরা অংশ। আমরা এর তীব্র নিন্দা জানাই এবং অবিলম্বে হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের ফাঁসির দাবি জানাই। বক্তগণ দেশের সকল সংস্কৃতিকর্মী ও প্রগতিশীলদের দৃঢ়ভাবে এই অনাচারের বিরূদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর আহবান জানান। তারা অবিলম্বে সকল চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় এনে বিচারের সম্মুখীন করে ফাঁসির দাবী জানান।

মানববন্ধন থেকে ৬ দফা দাবী উপস্থান করা হয়। দাবী গুলি হলো (১) তনন হত্যা মামলায় এজাহারভুক্ত আসামিদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসতে হবে। (২) সুষ্ঠ ও সঠিক তদন্তের মাধ্যমে মদদ দাতা ও আশ্রয়দাতাকে চিহ্নিত করতে হবে। (৩) দোষীদের বিরুদ্ধে বিচারের ব্যবস্থা গ্রহণের সাথে সাথে ক্ষতিগ্রস’ পরিবারকে ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা করতে হবে। (৪) কবি, সাহিত্যিক, সংবাদকর্মীদের স্বাভাবিক কাজ করবার স্বাধীনতা ভোগ করার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে আরও মনোযগেী হতে হবে। (৫) প্রয়োজনে বিচার বিভাগীয় তদন্তের ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে (৬) সৃষ্টিশীল ও বুদ্ধিবৃত্তিক চর্চার সাথে জড়িতদের কারও অনভিপ্রেত ও অস্বাভাবিক মৃত্যু ঘটলে অভিযুক্তদের বিশেষ আদালতের মাধ্যমে দ্রুত বিচার কাজ সম্পন্ন করতে হবে।

উল্লেখ্য কবি তনন হত্যার প্রতিবাদে এর পুর্বেও জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বাংলাদেশ অনলাইন লিটারেচার গ্রুপস ইউনিটি ও নদী নিরাপত্তার সামাজিক সংগঠন “নোঙর” এর আয়োজনে পৃথক দুটি মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।—(প্রেস বিজ্ঞপ্তি)

digital

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *