সোমবার , ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ,৫ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

কিট সংকটের কারণে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে করোনা পরীক্ষা বন্ধ

 কিট সংকটের কারণে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে করোনা পরীক্ষা বন্ধ

ডিঃব্রাঃ ডেস্কঃ
২৫০ শয্যাবিশিষ্ট ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে কিট সংকটের কারণে গত কয়েকদিন ঘরে র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্ট বন্ধ রয়েছে। ফলে রোগীরা করোনার নুমনা পরীক্ষার পর খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে আর ফলাফল পাবেন না। ঠিক কবে নাগাদ কিট পাওয়া যাবে সে বিষয়েও কোনো নিশ্চয়তা পাওয়া যায়নি। তবে পিসিআর ল্যাবের মাধ্যমে করোনার নমুনা পরীক্ষা করার কাজ অব্যাহত আছে।

হাসপাতালে আসা রোগী ও তাঁদের স্বজনেরা জানান, র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন টেস্টের মাধ্যমে রোগীরা করোনায় আক্রান্ত কিনা সেটা তাৎক্ষনিকভাবে জানতে পারতেন। এতে করে কারো পজেটিভ ফলাফল এলে তাৎক্ষনিকভাবে তিনি চিকিৎসা শুরু করার সুযোগ পেতেন। অন্যদিকে পিসিআর ল্যাবের মাধ্যমে পরীক্ষার ফলাফল জানতে এক সপ্তাহেরও বেশি সময় লাগে বলে নানা সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়।

মাহদুদুর রহমান নামে এক রোগী জানান, আগে অ্যান্টিজেন টেষ্টের মাধ্যমে কিছুক্ষণের মধ্যেই নমুনার ফলাফল পাওয়া যেতো। কিন্তু এখন কিট না থাকায় শুধুমাত্র পিসিআর ল্যাবের মাধ্যমে পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হচ্ছে। এতে ১০-১২ দিন সময় লাগবে সমস্যায় পড়তে হবে।

কোহিনুর আক্তার জানান, অফিসে যোগদানের জন্য পরীক্ষা করাতে এসেছেন। নমুনা দেয়ার পর জানতে পেরেছেন ফলাফল আসতে কয়েকদিন সময় লাগবে। এক্ষেত্রে অফিসে যোগদানে সমস্যা হবে। হাসপাতালে দ্রুত অ্যান্টিজেন কিট বরাদ্দের দাবি জানান তিনি।

হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা. মো: ওয়াহিদুজ্জামান জানান, অ্যান্টিজেন কিট সংকট থাকার কারণে আমরা একদিনে ফলাফল জানাতে পারছি না। মজুদ শেষ হয়ে যাবার কারণে এখন চট্টগ্রাম থেকে কিট দিতে পারবে না বলে জানিয়ে দেয়া হয়েছে। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে লোক পাঠিয়েও কিট পাওয়া যায়নি। তবে পিসিআর টেস্টের জন্য আমাদেরকে ১০ হাজার কিট দেয়া হয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, যেহেতু ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় কোনো পিসিআর ল্যাব নেই সেজন্য নমুনা ঢাকায় পাঠাতে হয়। সেখানে সারাদেশের নমুনা থাকার কারণে ফলাফল পেতে রোগীদেরকে কয়েকদিন অপেক্ষা করতে হয়। যদি সেখান থেকে এক-দুই দিনের ভেতরে ফলাফল দিয়ে দিতো তাহলে রোগীদের জন্য সুবিধা হত।

digital

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *