ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আশুগঞ্জ উপজেলার তালশহর পশ্চিম ইউনিয়ন পরিষদের তিনবারের চেয়ারম্যান আবু সামা। ২০১৬ সালের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে জয়লাভ করেন তিনি। গত ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে দলীয় প্রতীক না পেয়ে তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। এই নির্বাচনে চেয়ারম্যান আবু সামা মাত্র ১৬ ভোটে পরাজিত হন। নির্বাচনে আনারস প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন তিনি। রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে এই নির্বাচনের ফলাফলে সন্দেহ প্রকাশ করে পুনরায় ভোট গণনার আবেদন করেছেন আবু সামা। আবেদনের অনুলিপি দেওয়া হয় বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের সচিব, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তাকে। লিখিত আবেদনে আবু সামা অভিযোগ করেন, ৫ জানুয়ারি সকাল থেকে শান্তিপূর্ণ ভোট গ্রহণ চললেও বিকেল ৩টার পর ভিন্ন চিত্র দেখা যায়। ২নং ওয়ার্ডে প্রাইম প্রি-ক্যাডেট স্কুল ভোটকেন্দ্রে ২৪টি ভোট বাতিল করা হয়। এর মধ্যে আনারস প্রতীকের ১৭টি ভোট ছিল। ৭নং ওয়ার্ডে মশাইর আল ইকরা ইসলামিয়া কিন্ডারগার্টেন ভোটকেন্দ্র ও ৯নং ওয়ার্ডে কামাউড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোট পুনঃগণনা করা প্রয়োজন। আবেদনে তিনি বলেন, উপজেলা থেকে বেসরকারি ফলাফলে আমাকে ১৬ ভোটে পরাজিত ঘোষণা করা হয়। আমি মনে করি, উল্লিখিত কেন্দ্রগুলোর ভোট পুনঃগণনা করলে আমি অনেক বেশি ভোটে বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। এছাড়া প্রিসাইডিং অফিসাররা ভোট গণনার আগেই আমার পোলিং এজেন্টদের কাছ থেকে রেজাল্ট ফরমে অগ্রিম সই নিয়েছেন। তাই তালশহর পশ্চিম ইউনিয়নের ২নং, ৭নং ও ৯নং ওয়ার্ডের কেন্দ্রের ভোট গণনার দাবি জানান তিনি। এই বিষয়ে আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) অরবিন্দ বিশ্বাস বলেন, আমি আবেদনের অনুলিপি পেয়েছি। এই বিষয়ে ব্যবস্থা নেবেন নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা। তিনি আরও জানান, নির্বাচনের ব্যালট পেপারগুলো নিরাপত্তার সঙ্গে সংরক্ষিত আছে। যেন পুনরায় নির্বাচন কমিশন চাইলে ভোট গণনা করতে পারেন। প্রসঙ্গত, গত ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হওয়া নির্বাচনে তালশহর পশ্চিম ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সোলাইমান মিয়া নৌকা প্রতীকে বিজয়ী হয়েছেন।

মোঃনিয়ামুল ইসলাম আকন্ঞ্জি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here