বুধবার , ৮ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ ,২৩শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দিতে যুবদল নেতার নাম সুপারিশ!

 আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দিতে যুবদল নেতার নাম সুপারিশ!

ডিঃব্রাঃ
ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার বীরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেওয়ার জন্য কেন্দ্রে যে তিন প্রার্থীর নাম সুপারিশ করে পাঠানো হয়েছে- তার মধ্যে একজন যুবদল নেতা বলে অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি নিয়ে বীরগাঁও ইউনিয়নজুড়ে তুমুল সমালোচনা চলছে। স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের অভিযোগ, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডের কাছে চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসেবে নাম পাঠানো আনোয়ার হোসেন সৌদি আরবের একটি প্রাদেশিক যুবদল কমিটির নেতা। ওই কমিটির একটি ছবিও ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়েছে।

আওয়ামী লীগের একটি সূত্র জানিয়েছে, বীরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন দেওয়ার জন্য গতকাল বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) তিনজনের নাম কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডের কাছে পাঠায় জেলা আওয়ামী লীগ। এ তিনজন যথাক্রমে- আনোয়ার হোসেন, আফজাল হোসেন ও এস. এম. আলমগীর। এদের মধ্যে আফজাল বীরগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও আলমগীর জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক।

আনোয়ার হোসেনের নাম আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বোর্ডে পাঠানোর খবর ছড়িয়ে পড়লে অন্য দুই প্রার্থীসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ তৈরি হয়। আনোয়ার হোসেন সৌদি আরবের মদিনা মনোয়ারা প্রাদেশিক যুবদলের সদস্য উল্লেখ করে ফেসবুকে ওই কমিটির একটি ছবি ছড়িয়ে পড়ে।

এছাড়া বীরগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আফজাল হোসেনও প্রত্যয়ন করেছেন আনোয়ার হোসেন কখনোই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন না। তিনি দীর্ঘদিন যাবৎ সৌদি আরবে বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন ও আছেন বলে প্রত্যয়নে উল্লেখ করা হয়।

তবে দীর্ঘদিন ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত উল্লেখ করে আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘সব অভিযোগ মিথ্যা। আমার বিরুদ্ধে এগুলো তাদের বানানো, এডিট করা। আমার সঙ্গে বিএনপি শব্দটা একেবারেই বানোয়াট। আমি জানি আমি সত্য’।

বীরগাঁও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী এস. এম. আলমগীর জানান, আনোয়ার হোসেনের পরিবার বিএনপির রাজনীতি করে। সে কখনোই আওয়ামী লীগের কোনো মিছিল-মিটিং কিংবা কোনো কর্মসূচিতে অংশ নেয়নি’।

বীরগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আফজাল হোসেন বলেন, ‘কোনো সময়ই আনোয়ার আওয়ামী লীগ করেনি। সে সৌদি আরবে যুবদলের কমিটির সদস্য। সেই কমিটির ছবিও আমরা পেয়েছি। আমরা এগুলো বানাইনি, তার বন্ধু-বান্ধবরাই এগুলো আমাদের কাছে পাঠিয়েছে। খালেদা জিয়ার ব্যানারে তার ছবি রয়েছে- এমন ব্যানারের ছবিও আমাদের হাতে এসেছে’।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল মামুন সরকার বলেন, ‘উপজেলা থেকে যে তালিকা এসেছে- সেই তালিকা নিয়ে ছয় সদস্যের মন্তব্য কমিটির কাছে যে তথ্য আছে, প্রত্যেকের নামের পাশে তথ্যগুলো দেওয়া হয়েছে। প্রার্থী কী করে এসেছে, তার ভাই কী করে- সবকিছুই মন্তব্য কলামে লেখা হয়েছে’।

মোঃনিয়ামুল ইসলাম আকন্ঞ্জিঃ

ডিঃব্রাঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *